ওয়ান টু থ্রি ক্লিক ক্যামেরার পেছনে শম্পা গুহমজুমদার বর্ষা ২০১৭

এখন গরমকাল চলছে। গরমকাল ছবি তোলার পক্ষে একদমই উপযুক্ত সময় নয়। সুর্যের প্রখর আলোতে ল্যান্ডস্কেপ ফোটোগ্রাফিতে কোন মিস্ট বা ড্রামা তৈরি হওয়া মুশকিল। ফুলের ছবি অবশ্য তোলা যেতেই পারে। গরমের সময়ে হাতের কাছে অনেক রকমের ফুল ফুটে থাকে। তাই গরমকালেও সকাল ও বিকেলের আলোতে ফুলের ছবি তোলা যেতেই পারে।

একটা বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে যে সুর্যের আলো যেন সরাসরি ফুলের উপরে এসে না পড়ে। সাদা বা হলুদ ফুল হলে সরাসরি  সুর্যের আলোয় তা ওভার-এক্সপোজড হয়ে যেতে পারে। আবার অনেক ফুল,পাতার আড়ালে আত্মগোপন করে থাকে। সেক্ষেত্রে একটুকরো থার্মোকল শিট হাতের কাছে রাখতে হবে।অন্ধকার জায়গাতে এই শিটের সাহায্যে আলো রিফ্লেক্ট করে প্রয়োজন মতন আলোর ব্যবহার করা যেতে পারে।

হয়ত তোমাদের মনে হবে যে ফুলের ছবি তোলা সব থেকে সহজ। নেট দুনিয়াতে প্রতিদিন আমরা অজস্র ফুলের ছবি দেখছি। মোবাইল ফোনে ক্যামেরা থাকাতে ছবি তোলা খুবই সহজ কাজ হয়ে গেছে। কিন্তু ভাল ছবি তোলা আগের মতনই কঠিন রয়ে গেছে। তাই মামুলি ফুলের ছবি আর্টিস্টিক করতে গেলে তোমাকে ভাবতে হবে। কোনদিক থেকে আলো এসে পড়েছে দেখে নিতে হবে। একটু অন্য অ্যাঙ্গেলেও তুলতে হবে। না হলে  তোমার তোলা ফোটোর সঙ্গে আমজনতার তোলা ফোটোর কোন তফাত থাকবে না।

তাই ফুল দেখেই ফটাফট ক্লিক না করে একটু সময় দিয়ে দেখতে হবে। আর অন্য ক্ষেত্রের মতন ফুলের ছবিও ভোরের নরম আলোতে তুললে ভাল হবে। নেচার ফোটোগ্রাফির সময়ে ছোট একটা স্প্রে বোতল সঙ্গে রাখবে। ফুলের উপর একটু জল ছিটিয়ে দিলে তা আরো সুন্দর আর সতেজ দেখাবে।

আর একটা কথা মনে রাখতে হবে যে রৌদ্রোজ্জ্বল দিনে ফুলের ছবি অনেক ভাল ওঠে। মেঘলা দিনে কিন্তু ফুলের রঙের বাহার অনেকটাই কমে যায়।

তুমি কোন অ্যাঙ্গেলে ফুলটিকে দেখবে এটা ঠিক শেখানো যায় না।এটা তোমাকেই ঠিক করে নিতে হবে। ফুলের সঙ্গে কুঁড়ি পাওয়া গেলে সেটি ফুলের সৌন্দর্যে আর একটা মাত্রা যোগ করবে। একসঙ্গে অনেক ফুলের শৈল্পিক ছবিও তোলা যাবে।

এবারে বলি এডিটিং এর কথা। অন্য যে কোন ছবির মত একটু ক্রপ করা বা সফট করলে ছবি দেখতে আরো ভাল লাগে। আগেও তোমাদের বলেছি যে ছবি ঠিকমত উঠলে তবেই তাকে এডিট করে আরো সুন্দর করা যায়। কিন্তু যে ছবি অস্পষ্ট বা আর্টিস্টিক নয় ,তাকে এডিট করে বেশি কিছু ফল হবে না। এখানে আমি দুটি ছবিতে এডিট করে সফট ফোকাস করেছি। কিন্তু ম্যানুয়াল সেটিঙে ক্যামেরা রেখে নিজের ইচ্ছামতন সামনের ফুলটিকে প্রমিনেন্ট ও পেছনে আউট অফ ফোকাস করা যাবে।

একটা কথা সবসময়ে মনে রাখতে হবে যে অরিজিনাল ছবিটি যদি সুন্দর করে তোলা যায়,তবে এডিট না করাই ভাল। শীতকালে নানান ফুলের প্রদর্শনী বা মেলা হয়ে থাকে। তখন অবশ্যই ক্যামেরা নিয়ে যাওয়া উচিত। কারণ অত ফুল একসঙ্গে পাওয়া সহজ কথা নয়। শীতকালের নরম আলো ও কুয়াশা ফুলের ছবির পক্ষে উপযুক্ত। এখন গরমকালেও আশপাশে ফুটে থাকা ফুলের ছবি তুলে অভ্যাস করে নাও। আশাকরি তা হলে শীতকালে আরো অনেক চিন্তাভাবনা করে ভাল ছবি তুলতে পারবে। ফুল প্রকৃতির এমনই একটা  সৃষ্টি যা দেখে মন ভাল হয়ে যায়। তাই পরীক্ষার চাপে বা অন্য কোন কারণে মন খারাপ হলে ক্যামেরাটা নিয়ে ছবি তুলে দেখবে, মন সতেজ লাগছে আর আবার নতুন করে উৎসাহ ফিরে পাচ্ছ।

এই লেখার সব এপিসোড একত্রে

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

w

Connecting to %s