টাইম মেশিন ইতিহাসের খন্ডচিত্র- লিংকনের রসিকতা বাসুদেব দাস শীত ২০১৬

আগের লেখাগুলো এই পাতায়

timemachinelincolndouglasআমেরিকার রাষ্ট্রপতি আব্রাহাম লিংকনের চেহারা ছিল শ্রীহীন। বেঢপ গড়ণ, এলোমেলো চুল, গালভাঙা মুখ, চিবুক আর চোয়াল ঘিরে একগাদা দাড়ি। প্রথম দৃষ্টিতে তাঁকে অনেকটা ক্লাউনের মত মনে হত। কারণ ঢলঢলে পোশাক তাঁর গায়ে ঠিকমত ফিট হত না। কিন্তু তিনি যখন বক্তৃতা দিতেন, তখন লোক তাঁর চেহারার কথা ভুলে গিয়ে মন্ত্রমুগ্ধ হয়ে বক্তৃতা শুনত। এমনই সুন্দর ও মর্মস্পর্শী ছিল তাঁর বাচনভঙ্গী।

সুদর্শন না হলেও তাঁর মধ্যে ছিল একটা প্রখর ব্যক্তিত্বের ছাপ। নিজের সৌন্দর্যহীনতার বিষয়ে লিঙ্কন সম্পূর্ণ সচেতন ছিলেন। তাঁর রসবোধ ছিল প্রখর। একবার এক সভায় তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী ডগলাস তাঁকে দুমুখো বলে গাল দেওয়ায় তিনি সমবেত জনতার উদ্দেশ্যে বলেন, “Well I leave it to my audience—if I had another face do you think I would wear this one?” বিলেতের স্যাটারডে রিভিউ একবার তাঁর সম্পর্কে মন্তব্য করে, “he is not only the first magistrate but chief joker of the land”। লিঙ্কন যখন হাসতেন তখন দিলখোলা অট্টহাস্যে চারদিক মুখরিত করে রাখতেন।

কিশোর লিঙ্কন যখন মেন্টর গ্রেহাম নামে গ্রাম্য শিক্ষকের কাছে পড়তেন, তখন থেকেই তাঁর এই রসিক মনের পরিচয় পাওয়া যায়। মেন্টর তাঁকে একবার ভার্বের মুড পড়াবার সময় ইমপারেটিভ মুড এর উদাহরণ দিতে বলায় লিঙ্কন সঙ্গেসঙ্গে বলে ওঠেন “গো টু হেল।”

মেন্টর বললেন, “এটা কি ভদ্র উদাহরণ হল?”

জবাবে লিঙ্কন বললেন, “ভালো উদাহরণ চান তো? তাহলে বাইবেলের ভাষায় অলতে হয় amen (so be it)।

একবার তাঁর এক রাজনৈতিক সহকর্মী তাঁকে গ্রিক ইতিহাসসম্পর্কিত একটি বই পড়তে দেন। বইটি লিঙ্কনের কাছে খুব নীরস মনে হয়। বন্ধুকে সে কথা জানাতে তিনি আশ্চর্য হয়ে বললেন, বলেঙ্কি মিঃ প্রেসিডেন্ট, এইলেখকের মত গ্রিক ইতিহাসে এতবড় দিগ্‌গজ পণ্ডিত খুব কমই আছেন। তাঁর মত জ্ঞানসমুদ্রের এত গভীরে আর কেউ ডুব দিতে পেরেছেন কিনা সন্দেহ।”

বন্ধুর কথা শেষ হতেই লিঙ্কন অবলীলায় বলে উঠলেন, সে কথা তো অস্বীকার করছি না। তবে সমুদ্রে ডুব দিয়ে এমন শুকনোভাবে আর কেউ উঠে আসতে পারতেন কিনা সন্দেহ।”

লিঙ্কনের পারিবারিক অবস্থা ভালো ছিল না। সংসার প্রতিপালনের জন্য তাঁকে নানাধরণের বৃত্তি অবলম্বন করতে হয়েছিল। একটা সময় মুদিখানায় তাঁকে হুইস্কি বিক্রি করতেও হয়েছিল। একবার তাঁর রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী ডগলাস সে কথাটাই জনসমাবেশে উল্লেখ করে একবার তাঁকে ছোট করতে চাইলেন। লিঙ্কন তাতে বিন্দুমাত্র দমে না গিয়ে সঙ্গেসঙ্গে জবাব দিলেন, “তা মিস্টার ডগলাস ঠিকই বলেছেন। যখন হুইস্কি বেচতাম তখন আমার সেরা খদ্দের ছিলেন এই ডগলাস সাহেব। তবে কাউন্টারের যেদিকটায় আমি ছিলাম, সেদিকটা আজ শূন্য কিন্তু অন্যধারটা ডগলাস কিছুতেই ছেড়ে আসতে পারছেন না” অর্থাৎ লিঙ্কন বহুদিন মদ বেচা ছেড়ে দিয়েছেন কিন্তু ডগলাস আজও মদ খাওয়া ছাড়তে পারেননি।

জয়ঢাকের টাইম মেশিনের লাইব্রেরি

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s