ধাঁধা মজা রহস্য

 প্রথম ধাঁধা

আমায় দেখতে খুব সুন্দর তাইনা? স্নিগ্ধ, নরম, ঠান্ডা। কিন্তু ভীষণ ভীষণ একলা আমি। বন্ধু আছে অনেক। কিন্তু তারা অ্যাত্তো দূরে দূরে থাকে, সে বলার নয়। দুনিয়ায় থাকবার মধ্যে আছে এক বড়ো ভাই। বেজায় তেজি, বেজায় রাগী। তাই তাকে দেখলেই ভয়ে পালিয়ে যাই আমি। তুমি আমাকে চেন? সেকী রোজই তো দেখা হয় আমাদের? তাও চিনলে না? ছি।

দ্বিতীয় ধাঁধা

dhadha55 (Medium)এক জেলে একশোজন বন্দি আছে একশোটা আলাদা ঘরে। তারা কেউ একে অন্যের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেনা একদম। একবার সেই জেলে এক নতুন সুপার এলেন। তিনি সব বন্দিকে একটা ঘরে ডেকে এনে বললেন, আমরা একটা খেলা খেলব। প্রতিদিন একজন করে বন্দিকে একটা ঘরে ডেকে আনা হবে। একজন বন্দিকে একাধিকবারও ডাকা হতে পারে। সে ঘরে একটা সুইচ আছে। বন্দি ইচ্ছে করলে সে সুইচটা একবার টিপতে পারে, ইচ্ছে করলে না-ও টিপতে পারে। সুইচ টিপলে প্রত্যেক বন্দির ঘরে একটা বাজনা বাজবে। প্রথম একশো দিনের পর একশো এক নম্বর দিনে সুইচের ঘর থেকে বেরোবার সময় বন্দিকে একটা কথা বলতে হবে। কথাটা হয় হবে “প্রত্যেক বন্দিকে এই ঘরে আনা হয়ে গেছে” অথবা হবে “এখনো প্রত্যেক বন্দিকে এই ঘরে আনা হয়নি।” যদি তার কথাটা সত্যি হয় তাহলে সেইদিন সব বন্দিকে মুক্ত দেয়া হবে, আর যদি কথাটা ভুল হয় তাহলে সেইদিনই সব বন্দিকে হত্যা করা হবে। এরপর বন্দিদের দশ মিনিট সময় দেয়া হল আলোচনা করবার জন্য। তারপর সবাইকে যার যার ঘরে ফেরত নিয়ে যাওয়া হল। সব বন্দিদের যদি ছাড়া পেয়ে যেতে হয় তাহলে তারা আলোচনা করে কী কায়দা স্থির করবে?

তৃতীয় ধাঁধাঃ

সাদার সঙ্গে সবুজ মিশে লাল হয় কখন?