বৈজ্ঞানিকের দপ্তর টেকনো টুকটাক-আগুনের গল্প কিশোর ঘোষাল শরৎ ২০১৬

টেকনো টুকটাকের আগের পর্বগুলো

biggantechno03 (Medium)কিশোর ঘোষাল

প্রথম পর্ব

আগুন, আগুন, দাউ দাউ আগুন জ্বলছে পাহাড়তলিতে। আগুনের হল্কা, ধোঁয়া, আর ছাই উড়ছে হাওয়ায়। গাছের মোটা মোটা ডাল আর গুঁড়ি ফাটছে ফট ফট শব্দে। বড়ো বড়ো গাছের ডাল দাউ দাউ করে জ্বলতে জ্বলতে ভেঙে পড়ছে মাটিতে, তীব্র আগুনের শিখা লক লক করে উঠছে থেকে থেকে। জঙ্গলের মধ্যে বাস করা পশুর দল দৌড়ে চলেছে দিগ্বিদিকে। এখন হিংস্র বাঘের পাশে পাশে দৌড়চ্ছে হরিণের পাল। বুনো শুয়োরের সঙ্গে দৌড়চ্ছে বুনো মহিষের দল। কেউ কেউ দিশাহারা হয়ে ঢুকে পড়ছে আগুনের মধ্যে, দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে জ্বলতে জ্বলতে পড়ে যাচ্ছে আগুনের মধ্যে আর উঠে দাঁড়াচ্ছে না।

গুহার মুখে বসে এক বৃদ্ধ মানুষ দেখছিলেন, দলের যুবক যুবতী, বাচ্চা বাচ্চা ছেলে মেয়েরা চঞ্চল হয়ে উঠছিল বারবার, পাহাড়তলিতে ওই আগুনের দৃশ্য দেখে, তাদের চোখে, তাদের আচরণে প্রচণ্ড আতঙ্ক। এই গুহাতে থাকা কী উচিৎ হবে? ওই আগুন যদি উঠে আসে এই পাহাড়ের চূড়াতেও, যদি গ্রাস করে নেয় আদিম মানুষের এই নিশ্চিন্ত আবাসটুকু? দিনের বেলায় আগুনের প্রকোপটা খুব স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছিল না, কিন্তু রাতের অন্ধকারে সেই আগুনের তীব্র উজ্জ্বল রঙের প্রবাহে মুগ্ধ হয়ে গেল্ সেই মানুষগুলো। কী অপূর্ব সুন্দর রং, কি অপূর্ব তার আভা, আগুনের উজ্জ্বল গোলাপী আভায় উদ্ভাসিত হয়ে রইল সারা আকাশ। সেই ভয়ংকর অথচ সুন্দর অগ্নিকাণ্ডের দিকে নেশাগ্রস্তের মতো তাকিয়ে থেকে তারা সকলেই সারারাত কাটিয়ে দিল। ভোরের দিকে সে আগুন স্তিমিত হয়ে এল অনেকটাই, অজস্র ধোঁয়ার কুণ্ডলী পাকিয়ে উঠছে আকাশের দিকে, ধোঁয়ার আবরণে আচ্ছন্ন জঙ্গল। বাতাসে ধোঁয়ার গন্ধ। বিনিদ্র দুই চোখ জ্বালা করছে ধোঁয়ার স্পর্শে।

এক প্রৌঢ়া মহিলা বৃদ্ধের পাশেই বসেছিলেন, বললেন, “বাবা, মনে হচ্ছে, আগুন নিভে গেছে।” অশক্ত জরাগ্রস্ত শরীরের ভারে দুই হাঁটুর উপর নত হয়ে আসা মাথা তুলে বৃদ্ধ মানুষটি বললেন, “ও ভাবে বোলো না, ও ভাবে বোলো না, বলো অগ্নিদেব। করজোড়ে, নতজানু হয়ে বলো, হে অগ্নিদেব, তুমি শান্ত হও। হে প্রভু, শান্ত করো তোমার রোষ। হে দেবতা, তোমার ক্রোধের প্রচণ্ড তেজ জগতে কেউই সহ্য করতে পারে না। তুমি নিরস্ত হও। প্রসন্ন হও, হে অগ্নিদেব, তুমি প্রশমিত হয়ে আমাদের কল্যাণ দাও।”

প্রৌঢ়া  মহিলা নতজানু হয়ে, করজোড়ে কণ্ঠ মেলালো বৃদ্ধ মানুষটির সঙ্গে। তাদের ওই মন্ত্র উচ্চারণ করতে দেখে দলের অন্য সকলেও এসে বসল তাদের ঘিরে। গুহার সামনের চাতালে বসে তারা দেখল, গত পরশুও যে জঙ্গল থেকে তারা পশু শিকার করে আনত, সংগ্রহ করে আনত গাছের ফল, ক্ষত সারানোর ওষধি, সেই জঙ্গল আজ নিঃস্ব, পড়ে আছে শুধু ছাই আর জ্বলন্ত অঙ্গারের স্তূপ।

প্রৌঢ়া মহিলাই এই দলের নেত্রী। তার কাছাকাছি এসে বসেছিল তার থেকে একটু কমবয়সের আরো চারপাঁচজন  মহিলা। তাদের একজন বললেন,

“গুহায় সঞ্চিত সব খাবার দাবার প্রায় শেষ, এতগুলো লোক এখন কী খাবে? গত পরশুদিন শিকার করে আনা পশুমাংসে কাল সারাটাদিন চলে গেছে। টেনেটুনে আজকের দিনটাও হয়তো চলে যাবে। কিন্তু আজ রাত্রে, কিংবা কাল সকাল থেকে কি খাবে এতগুলো মানুষ? এখনই শিকারে যাওয়া দরকার, তা না হলে এতগুলো লোকের অনাহার অনিবার্য।” সে কথা প্রৌঢ় মহিলার বুঝতে অসুবিধে হল না, বড়দের কথা না হয় ছেড়েই দেওয়া গেল, কিন্তু ১১২ জনের এই দলে আছে অন্ততঃ চোদ্দ জন বালক বালিকা, তাদের ক্ষুধা কিভাবে শান্ত হবে? অসহায় চোখে তিনি উপস্থিত সকলের মুখের দিকে তাকালেন, কিন্তু কোন উত্তর খুঁজে পেলেন না। বৃদ্ধ মানুষটির দীর্ঘ অভিজ্ঞতা, তাঁর মুখের দিকে তাকিয়ে কিছু আশার কথা যেন শুনতে চাইলেন প্রৌঢ়া মহিলা। বৃদ্ধ মানুষটি শ্লেষ্মা জড়িত ঘড়ঘড়ে গলায় বললেন,

“দেবতার রোষ, এর থেকে মুক্তি দেখাতে পারেন একমাত্র দেবতাই। তাঁকে প্রসন্ন করো, তাঁকে সন্তুষ্ট করো। কিছু একটা উপায় তিনি ঠিক করে রেখেছেন। এতগুলো অসহায় মানুষকে তিনি অনাহারে মরতে দেবেন না নিশ্চয়ই।” বৃদ্ধ মানুষটির এই কথার থেকে, এই দুরবস্থা থেকে উদ্ধারের কোন উপায় পাওয়া গেল না, সকলেই অসহায় চোখে তাকিয়ে রইল ধোঁয়া ওঠা জঙ্গলের দিকে। অনেকক্ষণ পর একটি যুবক হঠাৎ কথা বলে উঠল,

“আজ খুব ভোরে আমি নিচেয় গিয়েছিলাম”, অজানা আশঙ্কায় সবাই শিউরে উঠল, সবাই ফিরে তাকাল সেই যুবকের দিকে। সকলের চোখেই একই জিজ্ঞাসা, কেন গিয়েছিলি? কি দেখলি সেখানে? সকলের মুখের দিকে তাকিয়ে সে বলল,

“দেখলাম, চারিদিকে ছাইয়ের স্তূপ, তারমধ্যে পড়ে আছে অনেক অনেক পশুর দগ্ধ দেহ। আশে পাশে জীবনের কোন অস্তিত্বই নেই আর। একটা পাখির ডাকও শুনতে পেলাম না। এমন নিঃশব্দ প্রাণহীন জায়গা আগে কোনদিন দেখিনি আমি। আমার খুব খিদে পেয়েছিল, গতকাল প্রায় কিছুই খাওয়া হয়নি আমার।” যুবক এই পর্যন্ত বলে একটু থামল। প্রৌঢ়া মহিলারা নিজেদের মুখ চাওয়াচাওয়ি করলেন, প্রায় সকলেই দীর্ঘশ্বাস ছাড়লেন। এই যুবক প্রৌঢ়া নেত্রীর এক বোনের ছেলে। সবার থেকে আলাদা। একটু দুর্বল, অন্য ভাইয়েরা যেমন বলিষ্ঠ শক্তিমান, এ ততটা নয়, কেমন যেন ভাবুক ধরনের। অন্য সব যুবকেরা খাবার সময় যেমন হামলে পড়ে, ও তেমন নয়, ও অপেক্ষা করে। সকলে খাওয়ার ভাগ তুলে নেওয়ার পর, যেটুকু বাঁচে, তাতেই ও খুশি থাকে। তার মা সেটা লক্ষ্য করে, প্রয়োজনে নিজের ভাগের থেকে তুলে দেন ছেলেকে। কাল নিচের দাবানলের আতঙ্কে খেয়াল করেননি, তাই গতকাল যুবক ছেলেটি অভুক্ত থেকেছে! যুবক আবার বলতে শুরু করল,

“কিচ্ছু পেলাম না, না ফল, না মূল, না কন্দ। এক জায়গায় বেশ বড়োসড়ো কয়েকটা হরিণ মরে পড়ে আছে দেখলাম, চামড়াহীন অর্ধদগ্ধ, মাথার শিং ছাড়া তাদের চেনবার উপায় নেই। পাথরের ছুরি দিয়ে কেটে সামনের পা থেকে অনেকটা মাংস কেটে নিলাম। আধপোড়া মাংস এতই নরম কাটতে কোন অসুবিধে হল না, অসুবিধে হল না, দাঁতে ছিঁড়ে চিবোতে। একটু পোড়া পোড়া গন্ধ, কিন্তু কাঁচা রক্ত মাংসের গন্ধ নেই, আর কি নরম, তুলতুলে, চিবোতেই যেন মিলিয়ে যেতে লাগল মুখের ভিতর। অনেকটা মাংস খেয়ে ফেললাম। ফিরে এসে দেখি, দাদু অগ্নিদেবের মন্ত্র পড়ছেন।” প্রৌঢ়া মাসীমার দিকে তাকিয়ে যুবক বলল,

“মাসীমা, আমরা কয়েকজন মিলে যদি ওই আধপোড়া পশুদের ওপরে বয়ে আনতে পারি, আমাদের বেশ কয়েকদিনের খাবারের সমস্যা মিটে যাবে। আর তার মধ্যে আমরা নিশ্চয়ই কোন বিকল্প ব্যবস্থা খুঁজে নিতে পারবো।” যুবকের কথা শেষ হবার আগেই, বৃদ্ধ শিউরে উঠলেন, ভীষণ উত্তেজিত হয়ে কাঁপা কাঁপা কণ্ঠস্বরে বললেন, “মূর্খ, উদ্ধত যুবক, তুই জানিস না কী ভয়ানক পাপ তুই করেছিস। ওই পশু প্রভু অগ্নিদেবের শিকার, তাঁর অগ্নিপ্রভায় ওইসকল পশু দগ্ধ হয়ে মারা গেছে। অগ্নিদেবের খাবার তুই চুরি করেছিস, এর পরিণাম মোটেই ভালো হবে না।” তারপর নিজের পুত্রকন্যাপৌত্রপৌত্রীদের দিকে তাকিয়ে বললেন, “সাবধান হ, সাবধান হ। লোভের বশে এমন পাপ করিস না। ওই অজ্ঞান ছোকরার কথায় ভুলেও অগ্নিদেবের আহারে ভাগ বসাতে যাস না। মরবি, সকলে একসঙ্গে মরবি, দেবতার রোষে কেউ পরিত্রাণ পাবি না।”  বৃদ্ধের কথা যুবকের মনঃপূত হল না, সে অধৈর্য হয়ে বলে উঠল,

“কিন্তু দাদু, অগ্নিদেব তাঁর একার আহারের জন্য এতগুলি পশুকে কেন পুড়িয়ে মেরে ফেললেন? তিনি কেমন দেবতা? আর মেরেই যখন ফেলেছেন, আমাদের আহারের জন্য, তার থেকে দশ-বিশ খানা যদি আমরা সরিয়েই আনি, তাতেই বা তিনি ক্রুদ্ধ হবেন কেন? তিনি না আমাদের দেবতা, আমরা যদি সুস্থ শরীরে বেঁচেই না থাকি – যদি অনাহারে মারাই যাই, তাঁকে দেবতা বলে কে মনে রাখবে?”

বৃদ্ধ প্রচণ্ড ক্রোধে কাঁপতে লাগলেন, তাঁর আর সেই শক্তি নেই, না হলে এক ঘুঁষিতে ভেঙে দিতে পারতেন এই উদ্ধত যুবকের নাক। তিনি নিজের মেয়েদের বললেন,

“তোদের আশ্‌কারা পেয়েই, ওর এই দশা। ওকে সংযত কর, নয়তো অগ্নিদেবের রোষে আমরা সবাই ধ্বংস হবো।”

প্রৌঢ়া নেত্রী গম্ভীর আদেশের সুরে বললেন,“আপনি শান্ত হোন বাবা, আমি দেখছি কী করা যায়। আপনি বরং গুহার ভিতরে গিয়ে বিশ্রাম নিন। কাল সারারাত আপনার এতটুকুও বিশ্রাম হয়নি।” ঈশারা পেয়ে দুই পুত্রের কাঁধে ভর দিয়ে, তিনি গুহার দিকে চলে গেলেন।

বৃদ্ধের গুহায় ঢোকা অবধি অপেক্ষা করে, যুবক বোনপোর দিকে তাকিয়ে প্রৌঢ়া নেত্রী জিজ্ঞাসা করলেন, “তুই ওই পোড়া মাংস খেলি? তোর ভালো লাগল?  কাঁচা টাটকা মাংস ছাড়া অন্য কোন মাংস খাবার কথা আমি তো ভাবতেই পারি না।”

প্রৌঢ়া নেত্রীর কথা প্রায় সবাই সমর্থন করল, অনেকে সেই যুবককে উপহাস করে বলল, “ছিঃ, পোড়া মাংস আবার কেউ খায় নাকি? থুঃ থুঃ। তোর কি কোন রুচি অরুচি নেই, রে? কোন পশুকেও কোনদিন পোড়া মাংস খেতে দেখিনি। তুই তো পশুরও অধম।” প্রৌঢ়া নেত্রী হাত তুলে সবাইকে চুপ করার আদেশ দিলেন, সবাই থামলে তিনি বললেন, “আমি অবশ্য অতটা বিরুদ্ধে যেতে চাইছি না। কারণ, আমরা এখন ভীষণ সংকটে, জঙ্গল পুড়ে ছাই হয়ে গেছে, জ্যান্ত পশুরা পালিয়ে গেছে দূরের অন্য কোন জঙ্গলে। নতুন জঙ্গল খুঁজে আমাদের সকলের বেঁচে থাকার মতো যথেষ্ট শিকার যোগাড় করতে বেশ কদিন সময় লাগবে। ততদিন, যদি একদম অখাদ্য না হয়, আমরা সবাই নিচেয় গিয়ে ব্যাপারটা বুঝে আসতেই পারি।”

বৃদ্ধ বাবার এবং তাঁর অগ্নিদেবের রোষের কথা দু একজন বলল, কিন্তু প্রৌঢ়া নেত্রী সে কথায় কান দিলেন না। তিনি জানেন এই পরিস্থিতিতে এত বড়ো দলটাকে সুস্থ ভাবে বাঁচিয়ে রাখাটা অনেক বেশি জরুরি, অনাহারে যদি সবাই মারাই যায়, তখন প্রভু অগ্নিদেবের রোষে কী আর এমন এসে যাবে? যুবক বোনপোর কথাগুলো পুরোটা মেনে নিতে পারেননি ঠিকই, কিন্তু অস্বীকার করে উড়িয়ে দেওয়ার জোরও পাচ্ছেন না।  শিশু আর দু একজন অসুস্থদের দেখা শোনার জন্যে কয়েকজন মহিলা থেকে গেল, দলের বাকিরা চলল পাহাড়তলির দিকে, সকলের সামনে সেই যুবক আর নেত্রী মহিলা। তাদের সকলের হাতে পাথরের তৈরি নানান আকারের ফলা।

 ফেলে যাওয়া সেই হরিণের পা থেকে পাথরের ফলা দিয়ে কেটে কেটে বেশ কয়েকটা টুকরো মাংস কেটে তুলল সেই যুবক, বাড়িয়ে দিল প্রৌঢ়া নেত্রী, তার মা ও অন্যান্য মাসীদের দিকে। অধীর আগ্রহে অন্য সকলে তাকিয়ে রইল তাদের দিকে। সকলেই জিভে ঠেকিয়ে স্বাদ নিলেন, গন্ধ নিলেন, তারপর দাঁতে কেটে চিবোতে লাগলেন মাংসের টুকরো। একদম অন্য রকম স্বাদ। একটু পোড়া পোড়া গন্ধ, কিন্তু তাতে পশুর নিজস্ব গন্ধ নেই বললেই চলে। অনেক সময় কিছু কিছু পশুর গায়ে খুব উৎকট গন্ধ হয়, সে গন্ধ অনেকটাই কম লাগছে। আর সব থেকে আশ্চর্য এত নরম মাংস, পূর্ণবয়স্ক হরিণের মাংস বলে মনেই হচ্ছে না, মনে হচ্ছে খুব বাচ্চা কোন হরিণের। তাঁদের আচরণে দলের অন্য সকলেই কিছুটা ভরসা পেল, তারাও সবাই নিজেদের পাথরের ফলা নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ল মাংস কেটে কেটে তুলতে।

পোড়া মাংসের অভিনব স্বাদ নিতে নিতে প্রৌঢ়া নেত্রী এবং তাঁর বোনেরা, দলের অন্য সকলের দিকেই লক্ষ রাখছিলেন। তাঁরা দেখলেন, শিকার করে আনা বড়ো একটা হরিণকে শেষ করতে যে সময় লাগে, তার অর্ধেক সময়েই দু দুটো প্রমাণ সাইজের আধপোড়া হরিণ শেষ করে দিয়েছে তাঁর দলটা। তার মানে ঝলসে যাওয়া এই পশুর মাংস ছাড়িয়ে খেতে অনেক কম সময় লাগছে। এই মাংস শিশু এবং নড়বড়ে দাঁত বৃদ্ধদের পক্ষেও অসুবিধের হবে না।

প্রৌঢ়া নেত্রী সবাইকে নির্দেশ দিলেন, যতগুলো সম্ভব এমন ঝলসানো পশু নিয়ে উপরে গুহার মধ্যে সংগ্রহ করতে, তারপর যুবক বোনপোর কাঁধে হাত রাখলেন, বললেন, “তোর থেকে আমরা এক নতুন বিষয় শিখলাম। আগুনে ঝলসানো পশু খাবার পক্ষে খুব সুবিধের। বাবা বলেছিলেন, এ অগ্নিদেবের রোষ, কিন্তু আমার মনে হচ্ছে এ তাঁর আশীর্বাদ। কিন্তু এমন তো রোজ রোজ হতে পারে না! জঙ্গলে তো আর নিয়মিত আগুন লাগবে না, আর একবার আগুন লাগলে জঙ্গলই তো সাফ হয়ে যাবে! কাজেই এমন সুবিধে রোজ রোজ আমাদের ভাগ্যে জোটার কোন আশা নেই।”

“কিন্তু, আম্মা, আগুন যদি জ্বালানো যেত, আমরা তো শিকার করে এনে, ঝলসে নিতে পারতাম, আমাদের দরকার মতো!” যুবকের এই কথায় প্রৌঢ়া নেত্রী খুব বিরক্ত হলেন, রূঢ়ভাবে বললেন,

“মূর্খ বাচালের মতো কথা বলিস না। প্রকৃতিতে ঝড়, বৃষ্টি, সূর্য, চন্দ্রের মতো, আগুনও দেবতার দান। এই আগুন নিজেই অগ্নিদেবতা। সেই আগুন তুই দরকার মতো জ্বালাবি, নেভাবি? তোর স্পর্ধার তো সীমা নেই, দেখছি। আমরা সবাই দেবতার অধীন, সেই দেবতাকে তুই বশে আনতে চাস? বাবা, ঠিকই বলেছেন, আমরাই আদর দিয়ে দিয়ে তোকে মাথায় তুলে দিয়েছি। এমন কথা আর কক্ষণো যেন না শুনি, এমন অমঙ্গলের কথা চিন্তা করলে, এই দলে আর তোর জায়গা হবে না, বলে দিলাম।”

যুবক মাথা নিচু করে রইল, আর কিছু বলল না, তবে তার মাথার মধ্যে চিন্তাটা ঘুরতেই লাগল। তার মনে হল অগ্নিদেবতার কী এমন গরজ পড়ল, যে তিনি আমাদের জন্য অজস্র পশু ঝলসে রেখে দিলেন? আর তার জন্যে তিনি, গোটা জঙ্গলটাকেই পুড়িয়ে ছাই করে দিলেন! কাল কী খাব সেটা একবারও ভাবলেন না? এটা কি সত্যিই অগ্নিদেবতার আশীর্বাদ, নাকি নিছক একটা দুর্ঘটনা?

দ্বিতীয় পর্ব

ঝলসানো পশু শুধু যে খাওয়ার সুবিধে তাই নয়, কাঁচা মাংসের থেকে অনেক বেশিদিন রাখাও যায়। অতএব গুহাবাসী এই দলটি বেশ কটাদিন সময় পেয়ে গেল, বেশ কিছুটা দূর পর্যন্ত জঙ্গলের সন্ধান করার এবং পেয়েও গেল মনোমত পশু এবং পর্যাপ্ত ফলমূল ভরা গভীর এক জঙ্গল। সেদিন ভোর ভোর তাদের একটা বড়দল পাথরের সমস্ত অস্ত্র নিয়ে বেরিয়ে পড়ল, সেই জঙ্গলে শিকার করতে। জঙ্গলের সবই ভালো, কিন্তু খুব পাথুরে, যেখানে সেখানে গভীর গাছপালার ভিতরে হাতির পিঠের মতো বড়ো বড়ো পাথর মাথা তুলে পড়ে আছে। এই পাথরের সুবিধে, অসুবিধে দুইই আছে। শিকারীর সুবিধে লুকিয়ে থাকতে, অসুবিধে শিকার খুঁজতে, কারণ পাথরের আড়ালে পশুরা লুকিয়ে থাকলে, চট করে দেখতে পাওয়া যায় না। এমনই এক বড়ো পাথরের আড়ালে শুকনো ঘাসপাতা আর ঝোপঝাড়ের মধ্যে হঠাৎ চোখে পড়ল দলছুট একটা বয়স্ক বুনো শুয়োর লুকিয়ে আছে। দলের লোক এবং মহিলারা অর্ধচন্দ্রের মতো গোল হয়ে, অস্ত্র বাগিয়ে নিচু হয়ে আস্তে আস্তে এগিয়ে চলল ঘন ঘাসের মধ্যে গা ঢাকা দিয়ে। তাকে ঘিরে শিকারী মানুষগুলোর অস্তিত্ব পশুটা বুঝে ফেলেছে, সে এখন সতর্ক, তার শরীর টানটান উত্তেজনায়, স্থির চোখে সে লক্ষ্য রাখছে, মানুষগুলোর গতিবিধি। শিকারী মানুষগুলোর বৃত্তটা যতো ছোট হয়ে আসতে লাগল, দুপক্ষের উত্তেজনার পারদ ততই চড়ছে। হঠাৎ শিকারীদের সঙ্গে শিকারের চোখাচোখি হতেই, মূহুর্তের জন্য সমস্ত কিছু থেমে গেল। মানুষগুলো একসঙ্গে বিকট চিৎকার করে, একইসঙ্গে ছুঁড়ে দিল পাথরের তীক্ষ্ণ ফলকগুলি। পশুটা আহত হয়েছে ঠিকই কিন্তু গুরুতর নয়, বরং তীব্র গতি ও শক্তিতে একজন মানুষের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে তীক্ষ্ণ দাঁতে চিরে দিল পেট, তারপর দৌড়ে পালাতে লাগল, বনের অন্য দিকে। পশুটার সারা গায়ে তো বটেই, নাকে আর চোখেও পাথরের ফলায় গভীর ক্ষত, তীব্র রক্তপাত হচ্ছে। আহত এই শিকার কিছুক্ষণের মধ্যেই ক্লান্ত হয়ে পড়বে, কমে আসবে তার পালাবার গতি, লড়াইয়ের শক্তি। শিকারী মানুষগুলো পেয়ে গেছে সাফল্যের স্বাদ, এত বড়ো শূকরের মাংস, তাদের গোটা দলের পক্ষে যথেষ্ট। তারা পিছনের দিকে তাকাল না, আহত সঙ্গীকে ফেলে রেখেই দৌড়ে গেল আহত শিকারের দিকে।

না সকলে গেল না, রয়ে গেল সেই যুবক, সে অতি দ্রূত সেই সঙ্গীকে ঘাসের ওপর শুইয়ে দিয়ে, জোগাড় করে আনল নানান গাছের পাতা, শেকড়। পাথরে ঘষে সবুজ পাতার রস আর প্রলেপ করে দিল সঙ্গীর ক্ষতে। সঙ্গী এখন অনেকটাই শান্ত, সুস্থ; তার দৃষ্টিতে কৃতজ্ঞতা ও ভালোবাসা। যুবক সেই সঙ্গীর পাশে এসে বসল। এতক্ষণের ব্যস্ততায় সে খেয়াল করেনি, হঠাৎ তার নাকে এল গাছের শুকনো পাতা ডালাপালা পোড়ার গন্ধ। চমকে উঠল যুবক, আবার কী অরণ্যে আগুন ধরল? সর্বনাশ, তা যদি হয়, তাহলে তারা সকলেই তো পুড়ে মরবে এই জঙ্গলের মধ্যে। তার দলের অন্য লোকেরা কোথায়, অরণ্যের কত ভিতরে? চারপাশে তাকিয়ে দেখল, যে বড় পাথরটাকে পিছনে রেখে শূকরটা দাঁড়িয়েছিল, সেই পাথরের কোলে শুকনো পাতা, শুকনো ঝোপঝাড়ের ডালপালায় আগুন জ্বলছে, খুব বড়ো সড়ো নয়, ধিকি ধিকি। এই কী তবে অগ্নিদেবের অভিশাপ? সেদিন সে এবং তার দলের লোকেরা তাঁর মাংস চুরি করেছিল বলেই, দেবতা প্রতিশোধের আয়োজন করছেন। যুবক ধীর পায়ে এগিয়ে গেল বড়ো পাথরটার দিকে। যে পাতাগুলো জ্বলছিল, যে ডালপালাগুলো জ্বলছিল, তার ওপর পাথর ছুড়তে লাগল, বেশ কিছুটা ভয়ে, অনেকটা আক্রোশে। এভাবে কোন দেবতাই পারেন না, মানুষের বেঁচে থাকার উপর খবরদারি করতে। কিছুক্ষণ পর পাথরে চাপা পড়ে নিভে গেল আগুন, সামান্য ধোঁয়া উঠতে লাগল পাথরের স্তূপের ভিতর থেকে। যুবক আশ্চর্য হল, তাহলে আগুনকে নিভিয়ে ফেলাও যায়? সেক্ষেত্রে আগুন জ্বালানো যাবে না কেন?

আগুন নিভে যাবার পর, সেই যুবক বড়ো পাথরের খুব কাছে গিয়ে দেখল তাদের ছোঁড়া পাঁচ ছটা পাথরের ফলক এদিকে সেদিকে ছড়িয়ে পড়ে রয়েছে। তার মধ্যে একটা ফলক তার। এর অর্থ তার ছোঁড়া পাথরের ফলক লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়েছে, এত কাছে থেকে এত বড়ো শিকারকে সে আহত করতে পারে নি বুঝে, যুবক লজ্জা পেল যেন। ওই বড়ো পাথরটাই যেন তার শিকার, হাতের শক্তি আর লক্ষ্যবেধের ক্ষমতা বাড়ানোর জন্যে সে পাথরের টুকরো ছুড়তে লাগল বারবার। হাতের সমস্ত শক্তি দিয়ে সে পাথর ছুঁড়তেই লাগল, ছুঁড়তেই লাগল। কিছুক্ষণ পরে, হঠাৎ লক্ষ্য করল, তার ছোঁড়া পাথরের আঘাতে, বড়ো পাথরটার গায়ে বার বার আগুনের ফুলকি দেখা যাচ্ছে। সে আবার ভয় পেল, ওই পাথরের বুকে কী আগুন আছে? তার দাদু, মা, মাসীরা যে অগ্নি দেবতার কথা বলেন, ওই পাথরের মধ্যেই কী তাঁর নিবাস? নাকি ওই পাথর তাঁর আশীর্বাদে পবিত্র?

আর সে পাথর ছুঁড়ল না, ধীরে ধীরে বড়ো পাথরটার কাছে গিয়ে নিচু হয়ে বসল। তার মনে হল, তাদের লক্ষ্যভ্রষ্ট হওয়া পাথরের আঘাতে যে আগুনের ফুলকি তৈরি হয়েছিল, তার থেকেই শুকনো ঘাস পাতায় আগুন ধরে যায়নি তো? তারা তখন শূকর শিকারের উত্তেজনায় কেউ লক্ষ্যই করেনি। আগুন আশে পাশে ছড়িয়ে যাওয়ার পরই তার নাকে গন্ধ এসেছিল, সে লক্ষ্য করেছিল। সেই যুবক হাতে একটা ছোট্ট পাথর তুলে, বড়ো পাথরের গায়ে ঠুকল এবং প্রত্যেকবার ঠিকরে উঠতে লাগল ফুলকি । এবার সে নিশ্চিত হল, ওই বড় পাথরটা অন্য পাথরের থেকে আলাদা, ওই পাথরের বুকে আগুন আছে। এবার সে বড়ো সেই পাথরটাকে খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখতে গিয়ে, এক জায়গায় একটা ফাটল দেখতে পেল। সেই ফাটলের মধ্যে পাথরের ফলক ঢুকিয়ে বেশ কয়েকবার ঠুকতেই ভেঙে বেরিয়ে এল মাঝারি সাইজের কয়েকটা পাথর। সেই আগুনে পাথরের টুকরোগুলো হাতে নিয়ে ঘষতেই বেরিয়ে এল biggantechno02 (Medium)আগুনের ফুলকি। এবার সে শুকনো পাতা কাঠকুটো যোগাড় করে, একটা স্তূপ বানাল, তার খুব কাছে দুটো আগুনে পাথর ঘষে ঘষে বার কয়েক ফুলকি দিতেই দপ করে শুকনো পাতায় আগুন জ্বলে উঠল। একবার আগুন ধরে যেতেই তার ওপর কাঠকুটো ধরে বেশ ছোট্ট একটা আগুনের কুণ্ড বানিয়ে ফেলতেও অসুবিধে হল না। আনন্দে সেই যুবক অদ্ভূত চিৎকার করে উঠল, তার সঙ্গী ওষধির গুণে তন্দ্রাচ্ছন্ন হয়ে ছিল, যুবকের চিৎকারে সে ভয় পেয়ে গেল। আরো ভয় পেয়ে গেল যুবকের সামনে জ্বলতে থাকা আগুন দেখে। বন্যশূকরের দাঁতের আঘাতের যন্ত্রণায় সে যে চিৎকার করেছিল, তার থেকে অনেক বেশি চিৎকার করে উঠল আগুনের ভয়ে। যুবক প্রথমে তাকে শান্ত করল, তারপর পাথর দিয়ে চেপে চেপে নিভিয়ে ফেলল তার জ্বালিয়ে তোলা আগুনের কুণ্ড। আহত সঙ্গী আশ্বস্ত হল, যুবকের অদ্ভূত ক্ষমতা দেখে আশ্চর্য হল অনেক বেশি।

সেই প্রকাণ্ড শূকর, তারসঙ্গে ছোট খাটো আরো কিছু পশু শিকার করে এবং আহত সঙ্গীকে মাচায় শুইয়ে নিয়ে, পুরো দলটি যখন তাদের গুহার আবাসে ফিরল, সূর্য ডুবতে তখন আর দেরি নেই। দলের অধিকাংশই তখন ক্লান্ত আর বিধ্বস্ত। ঠিক হল, সঞ্চিত খাবার গুহায় যা আছে, আর ছোটখাটো পশুগুলো খেয়েই রাতটা কাটিয়ে দেওয়া যাক। কাল সকালে উঠে বুনো শুয়োরের ছাল চামড়া ছাড়িয়ে যা ব্যবস্থা করার করা যাবে। সারাদিনের পরিশ্রম আর উত্তেজনায় হাক্লান্ত সেই দলের মানুষগুলো, সন্ধে নামার একটু পরেই ঘুমিয়ে পড়ল গুহার ভিতর।

প্রৌঢ়া মহিলার ঘুম খুব পাতলা, তার ওপর তাঁর খুব ভোরে ওঠার অভ্যেস। পরদিন ভোরে উঠে, গুহার বাইরে এসে দেখলেন, তাঁর বোনপো, সেই যুবক, গুহার বাইরে শুকনো পাতার একটা বড়সড় স্তূপ বানিয়েছে, আর যোগাড় করেছে, এক বোঝা শুকনো গাছের ডালপালা। অবাক হয়ে তিনি কিছুক্ষণ তার ব্যস্ততা লক্ষ্য করলেন, কিছুই বুঝতে না পেরে তিনি জিগ্যেস করলেন, “কী ব্যাপার বলতো, এই কাক ভোরে উঠে কী করছিস কি, ডালপালা দিয়ে?”

“কালকে যে বুনো শুয়োরটা শিকার করে নিয়ে এসেছ, ওটাকে ঝলসাব।” সন্দিগ্ধ চোখে ভ্রূ কুঁচকে তাকিয়ে প্রৌঢ়া মহিলা বললেন,

“তার মানে? আগুন পাবি কোথায়?” যুবক দৃঢ় বিশ্বাস নিয়ে বলল, “আগুন পেয়েছি, দেখ না কী করি! তুমি শুধু ওদের কয়েকজনকে বলো না শুয়োরটাকে এখানে এনে, এই যে এইখানে ঝুলিয়ে দেবে।” হাত বাড়িয়ে শুকনো পাতার স্তূপের দুপাশে খাড়া করা মোটা মোটা গাছের ডাল দুটো দেখিয়ে দিল যুবক। অবিশ্বাস আর বিরক্তিতে প্রৌঢ়া মহিলার ভুরু কুঁচকে উঠল। কিন্তু কিছু বললেন না, কিছুক্ষণ তাকিয়ে রইলেন যুবকের চোখের দিকে। তাঁদের কথার আওয়াজে আরো কয়েকজন গুহা থেকে বেরিয়ে এসেছিল, প্রৌঢ়া তাদের বললেন, গত দিনের শিকার করা মরা শুয়োরটাকে যুবকের কথা মতো ঝুলিয়ে দিতে। আগুন নিয়ে এই ছেলে খেলা তাঁর পছন্দ না হলেও, তাঁর মনে একটা কৌতূহলও হচ্ছিল, কী করে দেখাই যাক না।

জনা ছয়েক সবল পুরুষ ধরাধরি করে পশুটাকে ঝুলিয়ে দিল, দু পাশের খাড়া করা মোটা মোটা দুই ডালের মাথায়। তারপর সেই যুবক উবু হয়ে বসে, গত কাল দূরের জঙ্গল থেকে যোগাড় করে আনা পাথরের টুকরোর গায়ে, তার পাথরের অস্ত্র-ফলক ঠুকতে শুরু করল। ঝিলিক দিয়ে উঠল স্ফুলিঙ্গ। যারা যুবকের কাছাকাছি দাঁড়িয়েছিল, তারা ভয়ে লাফ দিয়ে সরে গেল অনেকটা দূরে। যুবক নিবিষ্ট মনে বার কয়েক পাথরে পাথর ঠুকতে ঠুকতে হঠাৎ দপ করে জ্বলে উঠল শুকনো পাতার স্তূপ। জ্বলে উঠল আগুন। শুকনো পাতার মধ্যে কয়েকটা শুকনো গাছের ডাল গুঁজে দিতে, সেগুলোও ধরে উঠল, আগুনের শিখা বড়ো হয়ে, ছুঁয়ে ফেলল মরা পশুর শরীর, পুড়তে লাগল তার রোম, চামড়া।

পশুটার সামনের দুই পা আর পেছনের দুই পা বাঁধা অবস্থায়, গাছের একটা মোটা ডালে ঝুলছিল। তার ফলে, আগুনের শিখার স্পর্শে দগ্ধ হচ্ছিল তার পিঠ, কাঁধ। বেশ কিছুক্ষণ দগ্ধ হবার পর, সেই যুবক লম্বা পাথরের ফলা নিয়ে কেটে নিল কাঁধের কিছুটা অংশ। তারপর তপ্ত, নরম সেই মাংস গাছের বড়ো একটা পাতার ওপর নিয়ে, প্রৌঢ়া মহিলার কাছে নিয়ে গেল যুবক। বলল, “আম্মা, খেয়ে দেখ তো সেদ্ধ হল কিনা?”

গরম গরম এবং নরম মাংসের স্বাদ ও গন্ধে নেত্রী আশ্চর্য হলেন, তিনি যুবকের দিকে তাকিয়ে গর্বের সঙ্গে বললেন, “সত্যিই অপূর্ব, তুই অগ্নিদেবের আশীর্বাদ পেয়েছিস।”  সেদিন শিশু থেকে জরাগ্রস্ত বৃদ্ধ, দলের সকলেই, সেই দগ্ধ মাংসের স্বাদ নিয়ে তৃপ্ত হল।

এই ঘটনার প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষ প্রভাব যে মানব সভ্যতাকে কোথায় নিয়ে গিয়ে দাঁড় করাবে, সে কথা সেদিনের সেই মানুষগুলির বোঝার সাধ্য ছিল না। কিন্তু এই ঘটনা যে মানব সভ্যতার আদিতে অন্যতম এক শ্রেষ্ঠ পদক্ষেপ ছিল, আজ সে কথা স্বীকার করতে কোন দ্বিধা নেই ।       

তৃতীয় পর্ব

biggantechno01 (Medium)

বিজ্ঞানীদের মধ্যে প্রচুর মতবিরোধ থাকলেও, সকলে একটা বিষয়ে নিশ্চিত যে প্রায় ১,২৫,০০০ বছর আগে মানুষ আগুনের নিয়ন্ত্রণ ও ব্যবহার করতে শুরু করেছিল। কেউ কেউ বলেন ৪,০০,০০০ বছর আগে। যাঁরা এই আগুনের ব্যবহার শুরু করেছিলেন, তাঁরা ছিলেন আমাদের এই বর্তমান মানবশ্রেণীর পূর্বপুরুষ। আমাদের এই মানবশ্রেণীকে বিজ্ঞানের ভাষায় বলে হোমো-স্যাপিয়েন (Homo-Sapien), আর যাঁরা এই কৃতিত্ব অর্জন করেছিলেন, তাঁরা ছিলেন হোমো-ইরেক্টাস  (Homo-erectus)। ইরেক্ট কথার মানে খাড়া বা ঋজু, মানবজাতির যে গোষ্ঠী প্রথম দুইপায়ে সোজা দাঁড়িয়ে চলাফেরা থেকে শুরু করে সব কাজ করতে পারত তাদের হোমো ইরেক্টাস বলা হত। এই প্রজাতির মানবগোষ্ঠী বহু বছর আগেই এই পৃথিবী থেকে বিলুপ্ত হয়ে গেছে। জার্মানির ল্যান্ডিস মিউজিয়মের বিজ্ঞানীরা হোমো-ইরেক্টাসদের চেহারা কেমন হতে পারে, তার একটি ছবি বানিয়েছেন। নিচের ছবিতে দেখে নিতে পারো, আমাদের সেই পূর্বপুরুষদের চেহারা।

আজ আমাদের রোজকার জীবনে আগুনের ব্যবহার এমন ওতপ্রোত ভাবে জড়িয়ে গেছে যে, আগুন যে আমাদের কতো বড়ো বন্ধু, সে কথা আমরা ভাবিই না। আগুন থেকে কোন বিপদ বা দুর্ঘটনা হলেই, আমরা যেন টের পাই তার ভয়ংকর ক্ষমতার কথা। এই আগুনের ব্যবহার কেন মানবসভ্যতায় অন্যতম শ্রেষ্ঠ পদক্ষেপ, সেইকথাই এখন তোমাদের বলব।

বদলে দিল মানুষের স্বভাবঃ

দেড়-দু লাখ বছর আগে মানুষেরা বেঁচে থাকত প্রকৃতির সঙ্গে লড়াই করে কিন্তু প্রকৃতির উপর সম্পূর্ণ নির্ভর করে। শীত-গ্রীষ্মের প্রকোপ, ঝড়ঝঞ্ঝা, আলো-অন্ধকার, নানান কীটপতঙ্গ থেকে শুরু করে প্রবল বন্যপ্রাণীদের আক্রমণ সমস্ত দিক দিয়েই প্রবল প্রতিকূল অবস্থার মধ্যেই চলত, সেই মানবজাতির জীবনযাত্রা। আগুন এনে দিল উত্তাপ এবং তার সঙ্গে সঙ্গে আলো। আগুন এবং তার ধোঁয়াকে অধিকাংশ প্রাণী এবং কীটপতঙ্গই ভয় করে, গুহার মুখে কিংবা চারদিকে আগুনের বলয় জ্বেলে রাখলে সারা রাত তাদের উৎপাত থেকে নিশ্চিন্তে ঘুমোন যায়। প্রচণ্ড শীতের রাতে আগুনের উত্তাপ মানুষকে নিরাপদ স্বস্তি দিল। দিন-রাত এবং শীত-গ্রীষ্মের পরিবেশে, আবহাওয়ায় যে তাপের (Ambient temperature) তারতম্য ঘটে, তার সঙ্গে শরীরের উত্তাপের (Body temperature) সামঞ্জস্য রাখার জন্যেই স্তন্যপায়ী প্রাণিদের শরীরে লোমের বাহুল্য। আগুনের ব্যবহার মানুষের শরীরের সেই তাপমাত্রার ওঠাপড়া অনেকটাই নিয়ন্ত্রণ করল, তার ফলে মানুষের শরীরে লোমের পরিমাণও কমতে লাগল। কোন কোন বিজ্ঞানীরা বলেন, যে সব মানবগোষ্ঠী গোরিলা বা শিম্পাঞ্জীদের মতো গাছের ওপর বাস করত, আগুনের ব্যবহার শিখে তারা মাটিতে ডালপালা দিয়ে ঘর বানিয়ে থাকা শুরু করেছিল। এই সব পরিবর্তন দু এক বছরে হয়েছিল, তা নয়, কিন্তু হাজার হাজার বছর ধরে হোমো ইরেক্টাসরা আজকের হোমোস্যাপিয়েন হবার দিকে এগোতে লাগল।

বদলে দিল খাদ্যঃ

সেই যুগে মানুষের খাদ্য ছিল জঙ্গলের কাঁচা ফল, মূল, শিকড় আর শিকার করা পশুর কাঁচা মাংস। কয়েকটা মাত্র ফল ছাড়া কাঁচা শাকসব্জি মূল, কন্দের সেলুলোজ ও স্টার্চ আমাদের হজম হয় না। আগুনে সেদ্ধ হয়ে, সেই সব সব্জি খেতেও যেমন সুবিধে হল, হজম হয়ে শরীরে সহজ পুষ্টিও সরবরাহ করতে লাগল। আগে যে সব কন্দ, বা শস্য দানা খাওয়ার কথা মানুষ ভাবতেই পারত না, সেই রকম অজস্র খাদ্য ঢুকে পড়ল তার খাদ্য তালিকায়। তার মধ্যে রয়েছে চাল, গম, যব, ভুট্টা, নানান ডাল – যা আজও সারা বিশ্বের মানব জাতির প্রধান খাদ্য। শস্যের খাদ্য রহস্য বুঝে ফেলার পর মানুষ ধীরে ধীরে শিখে ফেলতে লাগল চাষবাস। রান্না করা শস্যদানা, সব্জি, মাংস সহজে হজম হওয়ার জন্য, অনেক কম পরিমাণ খাদ্য থেকেও শরীরে অনেক বেশি পুষ্টির যোগান হতে লাগল। বিজ্ঞানীরা বলেন, শুধুমাত্র কাঁচা শাকসব্জি খেয়ে, শরীরকে তাজা আর কর্মক্ষম রাখতে হলে, মানুষকে দিনে অন্ততঃ সাড়ে নঘন্টা খেতে হত। শীতকালে চিড়িয়াখানায় গেলে দেখবে, জলহস্তী, গণ্ডার, হাতি, জিরাফ এই সব প্রাণীরা সারাদিনই মুখ নাড়িয়ে খেয়ে চলেছে।

তীক্ষ্ণ হতে থাকল মগজাস্ত্রঃ

আগুনের ব্যবহার শিখে রান্না করা খাবার গ্রহণের পরিমাণ কমে যাওয়ায় মানুষের পৌষ্টিক তন্ত্র অনেক হাল্কা হতে লাগল; সেদ্ধ খাবার চিবোনো অনেক সহজ হয়ে যাওয়ায়, চোয়ালের পেশী এবং দাঁতের গঠন বদলে গিয়ে, মানুষের মুখ ও মাথার গঠনও বদলাতে লাগল। খাবার সময় কমে গিয়ে এবং খাবারের বৈচিত্র্য বেড়ে যাওয়ার ফলে, শুধু খাওয়া, ঘুম আর বেঁচে থাকার চিন্তা ছাড়াও মানুষের হাতে অনেকটা সময় বেঁচে রইল। সেই সময়টা ব্যবহার হতে লাগল নানান চিন্তা ভাবনায়, অতএব বেড়ে গেল মস্তিষ্কের ব্যবহার। সেই চিন্তাভাবনা যত সুসংহত হল, মানুষের মস্তিষ্কের বিকাশ হতে লাগল দ্রুত। আগে শুধু কাঁচা খাদ্য খেতে এবং হজম করতে যে পরিমাণ পুষ্টি-শক্তি ক্ষয় হত, এখন সেই উদ্বৃত্ত পুষ্টি মস্তিষ্কের শক্তি বাড়িয়ে চলল। অভিনব চিন্তা ভাবনা থেকে মানুষ ধীরে ধীরে এগিয়ে চলল আরো উন্নতির দিকে; আরো সুস্থ, নিরাপদ, নিশ্চিন্ত জীবনের দিকে।      

নিচের প্রথম ছবিটি হোমো হ্যাবিলিস যারা পাথরের অস্ত্র ব্যবহার করতে শিখেছিল, দ্বিতীয় হোমো ইরেক্টাস যারা আগুনের ব্যবহার শিখেছিল, আর তৃতীয়টি আমাদের অত্যন্ত নিকট আত্মীয় হোমো স্যাপিয়েন্স। এদের নাক, মুখ, চোয়াল, ভুরু এবং মাথার গঠনের পরিবর্তন চোখে পড়ার মতো নয় কী?     

এরপর আগামী সংখ্যায়

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s