ভূতের আড্ডা দেশবিদেশের ভূতেরা-আলেয়া ও উইল অ দ্য উইস্প সংহিতা শরৎ ২০১৬

যারা অন্ধকার রাতে ট্রেনে চড়েছে তারা সব্বাই জানে, বনজঙ্গল পেরিয়ে দূরের বাড়িঘরের আলো দেখতে কেমন লাগে। সেগুলো দাঁড়িয়ে নেই যেন, যেন ছুট্টে চলে গেল দূরে। আবার ধীর গতিতে পাহাড়ি রাস্তায় চড়তে থাকলে, একই আলো একেক বাঁকে একেক রকম লাগে, কখনও বেশি উজ্জ্বল, কখনও কম, কখনও কাছে কখনও দূরে।

আবার এই আলোই নাকি বাংলার খাল-বিল-জলায় ঘেরা এলাকায় জেলেদের মৃত্যুর কারণ। সে আলোকে আলেয়া বলে। যা জেলেকে বা নৌকার দাঁড়িকে পথভ্রষ্ট করে নিজের দিকে টেনে নিয়ে আসে আর তারপর তাদের শ্বাসরোধ করে মেরে ফেলে। জলা জায়গায় আসলে নাকি পচা গাছপালা থেকে দাহ্য মিথেন গ্যাস তৈরি হয়। বাতাসের ফসফিন বা ডাইফসফিনের সংস্পর্শে এলেই মিথেন জলে ওঠে, আর মশালের শিখার মতো জ্বলতে থাকে মাটির থেকে কিছু ওপরে, যতক্ষণ না সবটা মিথেন জ্বলে ফুরিয়ে যায়। শুকনো ডালপালার ঘষাঘষিতে আগুনের ফুলকি তৈরি হলেও আশেপাশে থাকা মিথেন জ্বলে উঠতে পারে। তাই কখনও কখনও আলেয়া মাঠেও দেখা যায়। মিথেনের মধ্যে মানুষ শ্বাস নিতে পারে না, ফলে মিথেন পরিবৃত এলাকায় থাকলে মানুষ শ্বাসরোধে মারা যায়। অন্ধকার মাঠের পথে বা জলার মধ্যে আলোর দেখা পেয়ে সেদিকে আশ্রয়ের আশায় গেলে, মিথেনের আওতায় পৌঁছে দমবন্ধ হয়ে মরে যাওয়া অস্বভাবিক নয়। কিন্তু মৃত্যু ভূতের ভয় তৈরি করে। বিশেষত যেখানে রাতে আলেয়া দেখা যায়, সেখানে মৃত্যু ঘটলে আলেয়ার জন্যই যে মৃত্যু তা অনুমান করা সহজ হয়ে যায়। মিথেনের গুণ আর ধর্ম না জানা থাকলে, আলেয়াকে ভূত বলেও ভাবা যায়।

পাশ্চাত্য দেশে আলেয়াকেই বলে উইল-ও’-দ্য-উইস্প। তাছাড়াও একে ঘোস্ট লাইট, স্পুক লাইট, অর্ব এইসবও বলা হয়। কবরখানায় দেখতে পেলে এদেরই বলা হয় ঘোস্ট ক্যান্ডেল। উইস্প হলো কাগজ বা প্যাঁকাটি যা দিয়ে মশাল বানানো যায়। উইল একটা নাম, টম কিংবা জনের মতো। উইল-ও’-দ্য-উইস্প মানে মশালের উইল। পশ্চিমের দেশেও লোকেরা মনে করে যে পথিককে পথ ভ্রষ্ট করে নিয়ে যাওয়া আর তারপর তাকে মেরে ফেলাই উইল-ও’-দ্য-উইস্পের কাজ। পশ্চিমের কোনো দেশে উইল-ও’-দ্য-উইস্প নিয়ে চালু গল্পগুলোর একটা হলো যে উইল বা জ্যাক নামের এক ছোকরা আলো জেলে জলাতে তার অপকর্মের সুলুক সন্ধান করছে। আবার কে এম ব্রিগসের গল্পে আছে উইল নামের এক কামার স্বর্গের দরজায় উপস্থিত হলে সেন্ট পিটার তাকে দ্বিতীয় সুযোগ দেন। কিন্তু সেই সুযোগেও কামার উইল ভারি অসভ্যতা করে। তার জেরে তাকে পৃথিবীতে চক্কর কাটতে হয় চিরটাকাল। সে যাতে শীতে কষ্ট না পায়, তাই শয়তান তাকে একখন্ড জ্বলন্ত অঙ্গার দিয়েছিল। সেই জ্বলন্ত অঙ্গারের আলোই বিদেশে উইল-ও’-দ্য-উইস্প নামে চেনা যায়। দেশে দেশে কাহিনীর বিবরণ বদলে গেলেও তার সাথে মৃত্যু আর ভুতের ভয়টা উইল-ও’-দ্য-উইস্পের সঙ্গে সমান তালে রয়ে গেছে।

জয়ঢাকের  ভূতের আড্ডার সব লেখা

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s